itel l6502 দাম কত | itel l6502 price in bangladesh 2023

আসসালামু আলাইকুম, আজকের এই মূল্যবান পোষ্টের মাধ্যমে আপনাদের সাথে itel l6502 মোবাইল টি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। এখানে আমরা মোবাইলটির যাবতীয় স্পেসিফিকেশন এবং দাম সম্পর্কেও আপনাদেরকে জানাবো।

আইটেল কোম্পানি বর্তমানে কম টাকার মধ্যে অনেক ভালো ভালো মোবাইল গ্রাহকদের এর জন্য বানাচ্ছে। তবে এই মোবাইলগুলো থেকে গ্রাহকরা কেমন সার্ভিস পাচ্ছে এটা কিন্তু সবাই জানেন।

আমি মনে করি কম বাজেটের মধ্যে যদি কেউ এন্ড্রয়েড মোবাইল কিনতে চায় তাহলে তাকে অবশ্যই আইটেল কোম্পানির এই ধরনের মোবাইল গুলো দেখা উচিত। যাই হোক চলুন এখন আমরা এই itel l6502 দাম কত এবং itel l6502 price in bangladesh নিয়ে আলোচনা করি।

itel l6502 model name

অনেকেই জানে না যে এই itel l6502 model name কি?. এর প্রধান কারণ হচ্ছে মানুষজন itel l6502 বললে এটি চেনেনা। তো বন্ধুরা আপনাদের জন্য আমি বলে দিচ্ছি আইটেল ভিশন ওয়ান প্রো নামের যে মোবাইলটি রয়েছে সেটি কিন্তু এই মোবাইল।

আশা করি এখন থেকে আপনারা এই মোবাইলটিকে খুব ভালোভাবে চিনবেন।

itel l6502 | itel l6502 price in bangladesh

মোবাইলটি কেনার আগে অবশ্য এটি সম্পর্কে বিস্তারিত ভালোভাবে জেনে নিতে হবে। এখানে এই মোবাইলটি কার জন্য কেনা ভালো হবে এবং দাম হিসেবে মোবাইল এ ব্যাবহার করা যাবতীয় বিষয়বস্তুগুলো ঠিক আছে কিনা সেগুলো বুঝতে হবে।

যাই হোক নিচে এখন এই itel l6502 মোবাইলটি সম্পর্কে যাবতীয় তথ্যগুলো সুন্দরভাবে এক এক করে সহজ ভাষায় উপস্থাপন করা হলো।

বেসিক ইনফরমেশন অফ itel l6502

যখন ২০২০ সাল চলছিল তখন ডিসেম্বর মাসে সর্বপ্রথম এটি আইটেল কোম্পানি থেকে বাংলাদেশের মার্কেটে লঞ্চ করা হয় । এই মোবাইল ফোনটি যে কেউ মোট তিনটি চমৎকার কালারের ক্রয় করতে পারবে ,সেগুলো হলো: আইস ক্রিস্টাল ব্লু এবং কসমিক সাইন ।

যেসব রং ব্যবহার করে মোবাইলটিকে বিল্ডআপ করা হয়েছে সেগুলো দেখতে অনেক সুন্দর এবং চমৎকার। যে কোন ক্রেতার চোখে পড়তে বাধ্য এই মোবাইলটির ডিজাইন এবং এতে ব্যবহারকৃত কালার ।

itel l6502 এর বডি সম্পর্কে তথ্য

মাত্র ৮.৫ মিলিমিটার এর থিকনেস রয়েছে এই মোবাইল ফোনে। প্লাস্টিক নামক পদার্থ দিয়ে এর বডি বানানো হলেও সামনের অংশ ব্যবহার করা হয়েছে মজবুত কাচ।

মোবাইলটির উপরের দিকে মাঝখানের অংশে আপনারা সুন্দর একটি মিনিমাল নচ পেয়ে যাবেন। আর এই নোচ এর মধ্যে থাকবে মোবাইলে ব্যবহার করা সেলফি ক্যামেরাটি যেটা বেস চমৎকার।

itel l6502 এর ক্যামেরা

এই মোবাইলের ক্রেতা গণের মধ্যে বেশিরভাগ মানুষ মোবাইলটির ক্যামেরা দেখেই এটি পছন্দ করেছে। এর প্রধান কারণ হচ্ছে এত কম দামের মোবাইলটির পিছনে আপনারা মোট তিনটি ক্যামেরা সেটআপ পাবেন।

এছাড়াও এর সামনে সুন্দর একটি চমৎকার ৮ মেগাপিক্সেল এর সেলফি ক্যামেরা সেন্সর দেওয়া আছে। আর পিছনে যে মেইন ক্যামেরা টি দেওয়া হয়েছে সেটা মেগাপিক্সেল এর একটি সেন্সর।

ক্যামেরাগুলো দিয়া আপনারা সর্বোচ্চ ৪এক্স এর জুম করতে পারবেন এবং এক হাজার আশি পিক্সেল রেজুলেশন এর চমৎকার ভিডিও ধারণ করা যাবে।

ডিসপ্লে অফ itel l6502

প্রতিটি মোবাইলের ডিসপ্লে সেকশনে সবারই নজর থাকে। কারণ মোবাইলগুলোতে ভিডিও দেখার সময় কিংবা অন্য কাজের সময় এর ডিসপ্লের দিকেই আমাদেরকে তাকিয়ে থাকতে হয় ।

তো এই মোবাইল ফোনের মধ্যে 720 x 1600 পিক্সেল রেজুলেশন এর একটি 6.5 ইঞ্চি ডিসপ্লে লাগানো হয়েছে। যদিও ডিসপ্লের উপরে এক্সট্রা কোন প্রোটেকশন দেওয়া হয় নাই কিন্তু এর টেকনোলজি হচ্ছে এটি একটি মাল্টিটাস ডিসপ্লে।

২৮২ পিপিআই এবং এইচডি প্লাস এই ডিসপ্লেটি দেখতে অনেক চমৎকার এবং বাজেট ফ্রেন্ডলি।

স্টোরেজ সেকশন

মোবাইলের স্টোরেজ যদি ভালো না থাকে তাহলে এটি ব্যবহার করে খুব একটা মজা পাওয়া যায় না। যদি কম মেমোরি দেওয়া হয় তাহলে খুব তাড়াতাড়ি মোবাইলটি বুক হয়ে যায় এবং পরবর্তীতে আর ভালো পারফরমেন্স দিতে পারেনা।

তো আপনারা এই মোবাইলের মধ্যে ২ জিবি এবং তিন জিবি রেম পাবেন। তবে একটি মোবাইলের মধ্যেই কিন্তু এই দুটি রেম থাকবে না। মোবাইলটির দুইটি ভেরিয়েন্ট রয়েছে যার মধ্যে একটি ভেরিয়ান্টে দেওয়া আছে ২ জিবি র্যাম এবং অন্যটিতে ৩ জিবি র্যাম।

চমৎকার বিষয় হচ্ছে এখানে আপনারা মোবাইলের মধ্যেই পেয়ে যাবেন 32gb আলাদা ইন্টার্নাল মেমোরি স্টোরেজ। আর এই ৩২ জিবি কিন্তু কোনদিনই নষ্ট হবে না। যতদিন মোবাইল থাকবে ততদিন এই মেমোরি ব্যবহার করা যাবে।

মোবাইল ফোনের মধ্যে আপনারা যদি চান তাহলে আরও অনেক জিবি পর্যন্ত মেমোরি বাড়িয়ে নিতে পারেন । অর্থাৎ এখানে আলাদা করে সর্বোচ্চ ১২৮ জিবি এক্সটার্নাল মেমোরি ব্যবহার করার সুযোগ সুবিধা পাবেন ।

Battery of itel l6502

এখানে আপনারা চার হাজার মিলি অ্যাম্পিয়ার এর একটি চমৎকার ব্যাটারি পাবেন মোবাইলের মধ্যেই। আর যেহেতু এটি একটি লিথিয়াম আয়ন বাটারি এই কারণে এটি পুনরায় চার্জ দিয়ে আবার ব্যবহার করা যাবে।

তবে এখানে যে ব্যাটারি দেওয়া হয়েছে এটি কিন্তু মোবাইলের সাথে একবারে এডজাস্ট করা একটি ব্যাটারি। এখানে চাইলেও আপনি ব্যাটারিটা মোবাইল থেকে সহজে খুলতে পারবেন না।

ব্যাটারিটি যাতে খুব সহজে চার্জ দিতে পারেন এই কারণে মোবাইলের সাথেই আপনারা 10 ওয়াটের আরেকটি ফাস্ট চার্জার পেয়ে যাবেন।

itel l6502 Performance section

কোন মোবাইলের পারফরম্যান্স যদি ঠিক না থাকে তাহলে সেই মোবাইল ক্রয় করে কোন লাভই হবে না। তো এই মোবাইলের মধ্যে অপারেটিং সিস্টেম এর ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়েছিল এন্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম কে।

আর এখানে অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের যে ভার্সন ব্যবহার করা হয়েছে সেটি হচ্ছে অ্যান্ড্রয়েড ১০ ভার্সন , আর এটি একটি গো এডিশনের ভার্সন।

আপনার যদি এই মোবাইলটির চিপসেট দেখেন তাহলে এখানে পাবেন Unisoc SC9832E চিপসেট। আর এটি হচ্ছে ২৮ ন্যানোমিটার এর একটি চিপসেট। এখানে মোবাইলটির প্রসেসর সেকশনে আপনার অক্তা কোর এর একটি চমৎকার প্রসেসর পেয়ে যাচ্ছেন।

অর্থাৎ এখানে আপনারা Quad-core, 1.4 GHz প্রসেসর টি দেখতে পাবেন। এছাড়াও এই আইটেল কোম্পানির মোবাইলটির জিপিইউ সেকশনে আপনারা পেয়ে যাবেন Mali T820 MP1 জিপিউ।

মোবাইলটি দিয়ে খুব বেশি গেম খেলা যাবে না। শুধুমাত্র ফেসবুক, ইউটিউব সহ দৈনন্দিন জীবনে আমরা যে সমস্ত কাজগুলো করে থাকি সেগুলো করলে মোবাইলটি দীর্ঘদিন ব্যবহার করা যাবে ।

itel l6502 Security

মোবাইলের সিকিউরিটি অপশনে itel কোম্পানি বরাবরই বেশ ভালো কাজ করে থাকে। অর্থাৎ এখানে আপনারা বেশ কয়েক ধরনের সিকিউরিটি পাবেন।

মোবাইলের মধ্যে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সিকিউরিটি সহ ফেস আনলক সিকিউরিটি ও ব্যবহার করা যাবে। আর যদি আপনি এই দুইটি সিকিউরিটি একবারে ভালো রাখেন তাহলে কিন্তু মোবাইলটি আর কেউ ব্যবহার করতে পারবেনা আপনার পারমিশন ছাড়া।

ফিঙ্গারপ্রিন্ট এবং ফেস আনলক সিস্টেম ব্যতীত এখানে পিন, প্যাটার্নসহ যাবতীয় সিকিউরিটি অপশন গুলো ব্যবহার করতে পারবেন ।

যে ফিঙ্গারপ্রিন্ট টি মোবাইলের মধ্যে বসানো হয়েছে এটি কিন্তু মোবাইলের পিছনের সাইডে সুন্দরভাবে এটাচ করে দেওয়া হয়েছে। অর্থাৎ পিছনের দিকে নখ দিয়ে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর টি ব্যবহার করা যাবে ।

কালেক্টিভিটি অফ itel l6502

এই মোবাইলের মধ্যে সর্বোচ্চ ফোরজি নেটওয়ার্ক কানেকশন ব্যবহার করে যেকোনো ধরনের ইন্টারনেট চালানো যাবে। ফোরজি ব্যবহার করার পাশাপাশি আপনারা চাইলে ২ জি এবং ৩ জি নেটওয়ার্ক চালাতে পারবেন।

দুইটি নেনো সিম কার্ড একসাথে ব্যবহার করার পাশাপাশি এখানে আপনারা ওয়াইফাই এবং হটস্পট এর মত গুরুত্বপূর্ণ কানেকটিভিটি গুলো খুব সহজে ব্যবহার করতে পারবেন ।

এখানে ব্লুটুথ সেকশনে ভার্সন 4. জিরো দেওয়ার পাশাপাশি এফএম রেডিও সিস্টেম ও ইনক্লুড করা হয়েছে।

তবে চার্জিং কেবল এবং ইউএসবি সেকশনে ইউএসবি টাইপ সি ব্যবহার না করে এখানে ভার্শন ২.০ এর ইউএসবি ব্যবহার করা হয়েছে । যদিও বাজেট এর মধ্যে এটি খুব একটা খারাপ বিষয় নয়।

তবে হ্যা এই মোবাইল ফোনের মধ্যে কিন্তু আপনারা লোকেশন ব্যবহার করার পাশাপাশি ইউএসবি কেবল এর মাধ্যমে ওটিজি কেবল ব্যবহার করার সুযোগ পাচ্ছেন ।

itel l6502 দাম কত

অনেকেই আসলে এই itel l6502 মোবাইলের দাম সম্পর্কে বেশি বেশি জানতে চায়। তো বন্ধুরা এই মোবাইলের যে ২ জিবি র্যাম এবং ৩২ জিবি ইন্টারনাল মেমোরি এর ভার্সন রয়েছে সেটির কিন্তু দাম কিছুটা কমই রয়েছে ।

অর্থাৎ মোবাইলটির 2/ 32gb ভেরিয়েন্ট এর দাম হচ্ছে ৮৪৯০ টাকা । দাম হিসেবে কিন্তু এর মোবাইল এর পারফরমেন্স যথেষ্ট ভালো রয়েছে।

যদি পছন্দ হয় তাহলে মোবাইলটি আপনার খুব সহজেই বিভিন্ন দোকান থেকে কিনতে পারবেন। তবে মোবাইল কেনার সময় অবশ্যই এর আইএমইআই নাম্বার দিয়ে চেক করে নিতে হবে যে এটি অফিসিয়াল নাকি আন অফিসিয়াল ।

যদি আনফিশিয়াল হয় তাহলে দাম আরো অনেকটা কমে যাবে। কিন্তু কখনোই এই অফিসার মোবাইল গুলো নেওয়া ঠিক হবে না ।

পরিশেষে

আজকের এই ছোট পোস্টের মাধ্যমে আপনাদেরকে আইটেল কোম্পানির একটি মোবাইল itel l6502 সম্পর্কে বিস্তারিত বুঝিয়ে দিয়েছে।

এখানে চেষ্টা করা হয়েছে মোবাইলটি সম্পর্কে যাবতীয় সঠিক যে ইনফরমেশন গুলো রয়েছে সেগুলো আপনাদের সামনে তুলে ধরার। পোস্ট টি শেষ পর্যন্ত পড়ার পরেও যদি এই আইটেল মোবাইলটি সম্পর্কে কারো মনে কোন প্রশ্ন আসে তাহলে কমেন্টে আমাদেরকে জানাতে বলবেন না ।

Leave a Comment