অসুস্থতার জন্য পরীক্ষায় অনুপস্থিতির আবেদন পত্র লেখার নিয়ম

বাংলা দ্বিতীয় পত্রের লিখিত অংশের জন্য আবেদন পত্র লিখাটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। এখানে খুব কম লিখে অনেক ভালো মার্ক পাওয়া সম্ভব হয়। এই আবেদনপত্র গুলোর মধ্যে অসুস্থতার জন্য পরীক্ষায় অনুপস্থিতির আবেদন পত্রটি বেশ ইম্পরট্যান্ট একটি আবেদন পত্র ।

শুধুমাত্র পরীক্ষার জন্য নয় এই অসুস্থতার জন্য পরীক্ষায় অনুপস্থিতির আবেদন পত্রটি বাস্তব জীবন ও বিভিন্ন জায়গায় কাজে লাগতে পারে। যার কারণে এই পোষ্টের মধ্যে জ্বর থাকার কারণে পরীক্ষায় অনুপস্থিতির জন্য দরখাস্ত সহ এই আবেদন পত্র নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।

অসুস্থতার জন্য পরীক্ষায় অনুপস্থিতির আবেদন

পরীক্ষা একটু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তবে যদি পরীক্ষার দিন খুব বেশি অসুস্থ থাকে কেউ তখন অবশ্যই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে জানিয়ে তারপর পরীক্ষা মিস দিতে হবে না হলে এই পরীক্ষায় কিন্তু ফেল বলে ঘোষণা করা হবে।

তবে এই বিষয়গুলোর ক্ষেত্রে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কিন্তু সরাসরি কোন আবেদন গ্রহণ করবে না। তাদেরকে অবশ্যই লিখিতভাবে আবেদন পত্র লিখে জমা দিতে হবে।

বাস্তব জীবনে হোক কিংবা পরীক্ষায় গিয়ে লেখার জন্য হোক এই আবেদন পত্র গুলো অবশ্যই আমাদেরকে জেনে রাখতে হবে। নিচে আপনাদের জন্য সুন্দরভাবে অসুস্থতার জন্য পরীক্ষায় অনুপস্থিতির আবেদন পত্র লিখে দেওয়া হলো।

শুরু….

তারিখ: ৫ ডিসেম্বর ২০২৩ ইং

বরাবর
প্রধান শিক্ষক
হাতীবান্ধা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়
হাতীবান্ধা, খুবতলা , ঢাকা

বিষয়: অসুস্থতার জন্য পরীক্ষার দিনে ছুটি চেয়ে আবেদন

জনাব,
আসসালামু আলাইকুম, সবিনয় বিনীত নিবেদন এই যে আমি আপনার অত্র শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নবম শ্রেণীর একজন নিয়মিত ছাত্র। আমি নিয়মিত বিদ্যালয় আসি এবং প্রতিটি ক্লাস ঠিকভাবে সম্পন্ন করি।

কখনো কোন সঠিক কারণ ব্যতীত আমি বিদ্যালয়ে আসা বন্ধ করি না। চলতি বছরে আমি মাত্র একদিন বিদ্যালয়ে আসতে পারিনি এছাড়া প্রতিদিনই এসেছি।

নিয়মিত বিদ্যালয়ে আসা এবং প্রতিটি ক্লাসের পড়াগুলো সঠিকভাবে পড়া আমার নিত্যদিনের রুটিন। আমি সব সময় চেষ্টা করি ভালোভাবে পড়াশোনা করার জন্য এবং ভবিষ্যতে ভালো কিছু হওয়ার জন্য।

এখন থেকে আমি চেষ্টা করছি যাতে আমার ভবিষ্যতে ভালো কিছু হতে পারি এবং দেশ ও জাতির সেবা করতে পারি।

আমার অর্ধ বার্ষিক পরীক্ষা শুরু হয়েছে নভেম্বর মাসের ২২ তারিখে। এতদিন যে পরীক্ষাগুলো হয়েছে আমি প্রতিটি পরীক্ষাতে উপস্থিত হয়েছি এবং যথাযথভাবে প্রশ্নগুলোর উত্তর দিয়ে পরীক্ষা সম্পন্ন করেছি।

আগামী ৬ তারিখে আমার বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় পরীক্ষার ডেট হয়েছে । বিগত সমস্ত পরীক্ষা দিতে পারলেও আমি বেশ কয়েকদিন ধরে অসুস্থ থাকার কারণে আগামী ৬ তারিখের বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় পরীক্ষা দিতে অংশগ্রহণ করতে পারবো না।

যদি আমার অসুস্থতার পরিমাণ কম হতো তাহলে অবশ্যই আমি এই পরীক্ষাতেও অংশগ্রহণ করতাম। কিন্তু আমার অসুস্থতার তীব্রতা এতই বেশি যে আমি বিদ্যালয়ে যেতে পারবো না এবং লিখতেও পারবো না।

গত পরীক্ষাটি দিয়ে আসার পর থেকেই আমি অসুস্থ হয়ে পড়ি এবং ডাক্তারের নিকট শরণাপন্ন হয়। ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ঔষধ সেবন করা সত্ত্বেও আমি দিন দিন বেশি অসুস্থ হয়ে পড়ি এবং ডাক্তার আমাকে বিশ্রামে থাকতে বলেছে।

আমার অসুস্থতা ঠিক হলে আমি পরবর্তী পরীক্ষা থেকে নিয়মিত প্রতিটি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবো এবং যথাযথভাবে পরীক্ষা সম্পন্ন করব ইনশাআল্লাহ ।

পরিশেষে আমি আপনার কাছে আবেদন করি যে আমার উক্ত বিষয়গুলো যথাযথভাবে বিবেচনা করবেন ও আমার এই আবেদন টিকে মঞ্জুর করবেন।

নিবেদক
অত্র বিদ্যালয়ের নিয়মিত ছাত্র
মোহাম্মদ জহিরুল কবীর
শ্রেণী: নবম
রোল নং: ৫
বিভাগ: বিজ্ঞান
শাখা: গ

উপরে যেভাবে নমুনাটি দেখিয়ে দেওয়া হয়েছে এভাবে বাস্তব জীবনে আবেদন পত্রটি লিখে স্কুলে সাবমিট করলে আশা করি আবেদন মঞ্জুর হবে। এছাড়াও চাইলে পরীক্ষার মধ্যে উক্ত নিয়ম অবলম্বন করে আবেদনপত্রটি লেখা যাবে।

তবে হ্যাঁ এখানে লেখার সময় অবশ্যই বর্ণনা এত বড় না করে সংক্ষিপ্তভাবে শুধুমাত্র মূল বিষয়টি উল্লেখ করলেই হবে। আপনার অসুস্থতার কারণ বর্ণনা করে সংক্ষিপ্তভাবে আবেদন পত্রটি লিখলে আরো ভালো হবে।

জ্বর থাকার কারনে পরীক্ষায় অনুপস্থিতির জন্য দরখাস্ত

অনেক সময় আমাদের পরীক্ষার মধ্যে তীব্র জর আসে এবং আমরা পরীক্ষায় উপস্থিত হতে পারি না। যদিও এর জন্য আলাদা কোনো ধরনের নিয়ম নেই । শুধুমাত্র আবেদন পত্রের বর্ণনার ক্ষেত্রে কিছুটা পরিবর্তন আসবে।

যাই হোক নিচে এখন সুন্দরভাবে এই জ্বর থাকার কারণে পরীক্ষায় অনুপস্থিতির জন্য দরখাস্ত টি লিখে দেওয়া হলো। এখানে শুধুমাত্র নমুনা হিসেবে কিছু নাম এবং জায়গার কথা উল্লেখ করা হবে। আপনি লেখার সময় অবশ্যই নিজের বিস্তারিত বর্ণনা তুলে ধরবেন।

তারিখ: ৩ জানুয়ারি ২০২৪ ইং
বরাবর
বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক
পিরোজপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়
পিরোজপুর ময়মনসিংহ বরিশাল

বিষয়: জ্বরের কারণে ছুটি চেয়ে আবেদন

জনাব, ( প্রধান শিক্ষক মেয়ে হলে জনাবা লিখতে হবে )
আসসাামুআলাইকুম সবিনয় নিবেদন করছি যে আমি আপনার বিদ্যালয়ের নিয়মিত একজন ছাত্রী। আমি এই বিদ্যালয়ে প্রায় তিন বছর ধরে পড়াশোনা করতেছি । আমি নিয়মিত ক্লাস করি এবং ক্লাসের প্রতিটি অধ্যায় সম্পন্ন করে।

আমি গুরুত্বপূর্ণ কোন কারন ছাড়া স্কুলে আসা কখনো বাদ দেই না। গত সপ্তাহের শুরু থেকে আমার স্কুলের অর্ধ বার্ষিক পরীক্ষা শুরু হয়েছে। বিগত প্রতিটি পরীক্ষায় আমি সঠিকভাবে উপস্থিত হয়েছি এবং প্রতিটি পরীক্ষা সুন্দর ভাবে দিয়েছি।

আশা করছি যে পরীক্ষা গুলো দিয়েছি এগুলোতে আমি ভালো রেজাল্ট করব। তবে আমি গত কয়েক দিন হল প্রচন্ড জ্বরে আক্রান্ত হয়েছে। আগের পরীক্ষাগুলো দেওয়ার সময় ও আমার শরীরে জ্বর ছিল এবং আমি সেগুলো সামলে পরীক্ষা দিয়েছি।

জ্বর যেদিন এসেছে সেদিন থেকেই আমি ডাক্তার দেখিয়েছি এবং ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী যাবতীয় মেডিসিন সেবন করতেছি। কিন্তু গত একদিন হলো আমার শরীর অনেক বেশি অসুস্থ হয়ে পড়েছে।

এই অসুস্থতার কারণে আমি চলাফেরা করতে পারছি না এবং পড়াশোনাও করতে পারছি না। যার কারণে হয়তো আমি পরবর্তী দুই থেকে তিনটি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবো না।

আমার বর্তমান জ্বরের পরিস্থিতি থেকে সম্পূর্ণ ঠিক হতে কতদিন লাগবে সেটা ভালোভাবে বোঝা যাচ্ছে না । এরপরও আমি চেষ্টা করব যখনই একটু সুস্থ হয়ে যাব তখনই পরীক্ষা গুলোতে ঠিকভাবে অংশগ্রহণ করা।

আপনি আমার জন্য দোয়া করবেন যেন এই পরিস্থিতি থেকে দ্রুত সেরে উঠতে পারি এবং আমার বাকি পরীক্ষা গুলো ঠিকভাবে দিতে পারি।

আমি আশা করছি প্রতিটি বিষয়ে ভালোভাবে পড়ে এবং আমার বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনা করে এই পরীক্ষাগুলো থেকে আমাকে ছুটি দিয়ে এই আবেদনটি মঞ্জুর করবেন।

নিবেদক
অত্র প্রতিষ্ঠানের নিয়মিত ছাত্রী
মোছা: হুমায়রা খাতুন
শ্রেণী: ৮ম
রোল: ০৭

এভাবে আপনারা জ্বর থাকার কারনে পরীক্ষায় অনুপস্থিতির জন্য দরখাস্ত গুলো লিখতে পারেন। তবে বর্ণনা লেখার ক্ষেত্রে অবশ্যই ছোট করে শুধুমাত্র মূল বিষয়টি উল্লেখ করার চেষ্টা করবেন।

আপনার বিদ্যালয়ে কোন শ্রেণীতে পড়েন এবং রোল কত সেগুলো অবশ্যই ঠিকভাবে উল্লেখ করতে হবে। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে এই আবেদন পত্রের সাথে যদি ডাক্তারের দেয়া প্রেসক্রিপশন এর ফটোকপি যুক্ত করে দেন তাহলে সেটা আরো ভালো হবে।

কলেজে পরীক্ষায় অনুপস্থিতির জন্য দরখাস্ত

খুব গুরুতর কোন কারণ ব্যতীত কলেজের পরীক্ষাগুলিতে অনুপস্থিত থাকা যাবে না । যদি অনুপস্থিত থাকার কারণ গুরুত্বপূর্ণ না হয় তাহলে কিন্তু আবেদন পত্রটি মঞ্জুর হবে না।

খুব অসুস্থ হলে তবেই দরখাস্ত করে পরীক্ষার সময় অনুপস্থিতির অনুমতি নেওয়া যেতে পারে । নিচে কলেজে পরীক্ষায় অনুপস্থিতির জন্য দরখাস্ত লেখার নমুনাটি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হলো।

তারিখ: ২৬ ডিসেম্বর ২০২৩ ইং
বরাবর
প্রিন্সিপাল
রংপুর কারমাইকেল কলেজ, রংপুর
লালবাগ, রংপুর

বিষয়: পরীক্ষায় অনুপস্থিতির জন্য আবেদন

জনাব,
আসসালামু আলাইকুম, সবিনয় নিবেদন এই যে আমি আপনার অত্র কলেজের নিয়মিত একজন ছাত্র । আমি কলেজে গত তিন বছর ধরে অধ্যয়নরত আছি। বর্তমানে আমি এই কলেজের ইতিহাস বিভাগের ৩য় বর্ষের একজন ছাত্র।

আমি প্রায় প্রতিদিনই কলেজে আসি এবং কলেজে হওয়া প্রতিটি ক্লাস ঠিকভাবে সম্পন্ন করি । গত মাসের শেষে আমাদের অর্থ বার্ষিক পরীক্ষা শুরু হয়েছে। আমি প্রতিটি পরীক্ষা ঠিক ভাবে দিয়ে এসেছি।

আমি আশাবাদী যে, যে পরীক্ষাগুলো আমি ঠিক ভাবে দিয়েছি এগুলোতে অবশ্যই ফাস্ট ক্লাস পাব ইনশাল্লাহ । কিন্তু ….. ( এইখানে আপনি কেন পরীক্ষায় উপস্থিত হতে পারবেন না সেই কারণ টি সুন্দরভাবে বিস্তারিত উল্লেখ করে দিবেন। যত সুন্দর ভাষায় আপনার কারণটি উল্লেখ করতে পারবেন, আপনার এই আবেদনটি মঞ্জুর হওয়ার সম্ভবনা তত বেশি থাকবে।

যে কারণটি আবেদন পত্রের মধ্যে উল্লেখ করবেন সেই কারণ এর প্রমাণ হিসেবে যদি কোন ফটোকপি যুক্ত করতে পারেন তাহলে বিষয়টি আরো সুন্দর হবে ।)……..

আশা করি আমার বিষয়গুলো সঠিকভাবে বিবেচনায় এনে আমার এই ছুটি মঞ্জুর করে আমাকে বাধিত করবেন।

নিবেদক
এই কলেজের একজন ছাত্র
মোহাম্মদ রজ্জব হোসেন
বিভাগ: ইতিহাস
বর্ষ: ৩য়
রোল; ১২৩৪৪৫

পরিশেষে

আজকের এই সংক্ষিপ্ত পোস্টের মাধ্যমে আপনাদেরকে অসুস্থতার জন্য পরীক্ষায় অনুপস্থিতির আবেদন পত্রটি লেখার নিয়ম সুন্দরভাবে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। আজকের এই পোস্ট দেখে যদি আপনি পত্রটি লেখা শিখেন তাহলে এটি আপনার বাস্তবে কাজে লাগবে এবং পরীক্ষাতে প্রশ্ন আসলে সেখানেও লিখতে পারবেন। ।

প্রথমের তারিখটি অবশ্যই যেদিন পত্র লিখছেন সেদিনের তারিখ দিবেন। এরপর আপনার বিদ্যালয়ের নামটি ঠিকভাবে উল্লেখ করবেন এবং নিচে ঠিকানাটিও দিয়ে দিবেন ।

এরপর আবেদন পত্রের বর্ণনা যেখানে লিখবেন সেখানে অবশ্যই সংক্ষিপ্ত আকারে ছুটি নেওয়ার কারণটি সুন্দর ভাবে ফুটিয়ে তুলতে হবে। এমনভাবে আবেদন পত্রটি লিখবেন যাতে যিনি পড়বেন তিনি অল্প পড়েই আপনার পুরো বিষয়টি বুঝে নিতে পারে ।

আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে এই আবেদন পত্র গুলো লেখার সময় পত্রের মধ্যে কোন ধরনের বানান ভুল করা যাবে না কিংবা ব্যাকরণগত ভুল করা যাবে না। এ ধরনের ভুল করলে শিক্ষকের মনে আপনার ব্যাপারে নেতিবাচক চিন্তা সৃষ্টি হবে এবং আবেদন গ্রহণ হবে না ।

পোস্টে উল্লেখ করা প্রতিটি বিষয় ভালোভাবে পড়ার পর যদি কোন স্থানে বুঝতে সমস্যা হয় তাহলে অবশ্যই কমেন্টে আমাদেরকে জানাবেন ।

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *